1. ashraful.shanto@gmail.com : Ashraful Talukder : Ashraful Talukder
  2. newstalukder@gmail.com : Alamgir Talukder : Alamgir Talukder
বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:১৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
কচুয়ার ১২ টি ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক পেলেন যারা কচুয়ায় উৎসবমূখর পরিবেশে ইউপি নির্বাচনের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও দাখিল চেয়ারম্যান পদে ৫৮ ও মেম্বার পদে ৫শত ১৫ জনের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ কচুয়ায় পুকুর থেকে রিক্সাচালকের ভাসমান লাশ উদ্ধার কচুয়ার কড়ইয়া ইউনিয়নের তৃনমূলের প্রার্থী নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী আবদুস ছালাম সওদাগরের ব্যাপক গনসংযোগ ১৬মাস ১০ দিন পর কচুয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: শাহজাহান পুনর্বহাল কচুয়ার নলুয়ায় ডক্টর মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপির বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন কচুয়া উত্তর ইউনিয়নে ড.মহীউদ্দীন খন আলমগীর এমপি’র বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন কচুয়ার শেখ মুজিবুর রহমান ডিগ্রি কলেজ এই অঞ্চলের শ্রেষ্ঠ বাতিঘর: ড.মহীউদ্দীন খন আলমগীর এমপি কচুয়ায় ড. মুনতাসীর মামুন ফাতেমা ট্রাস্টের অস্বচ্ছল পরিবারের মাঝে ভ্যান গাড়ি বিতরণ কচুয়ার দুর্গাপুরে ইউপি সদস্যের নির্বাচনী প্রচারনায় হামলা ॥আহত ৪
শিরোনাম
কচুয়ার ১২ টি ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক পেলেন যারা কচুয়ায় উৎসবমূখর পরিবেশে ইউপি নির্বাচনের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও দাখিল চেয়ারম্যান পদে ৫৮ ও মেম্বার পদে ৫শত ১৫ জনের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ কচুয়ায় পুকুর থেকে রিক্সাচালকের ভাসমান লাশ উদ্ধার কচুয়ার কড়ইয়া ইউনিয়নের তৃনমূলের প্রার্থী নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী আবদুস ছালাম সওদাগরের ব্যাপক গনসংযোগ ১৬মাস ১০ দিন পর কচুয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: শাহজাহান পুনর্বহাল কচুয়ার নলুয়ায় ডক্টর মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপির বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন কচুয়া উত্তর ইউনিয়নে ড.মহীউদ্দীন খন আলমগীর এমপি’র বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন কচুয়ার শেখ মুজিবুর রহমান ডিগ্রি কলেজ এই অঞ্চলের শ্রেষ্ঠ বাতিঘর: ড.মহীউদ্দীন খন আলমগীর এমপি কচুয়ায় ড. মুনতাসীর মামুন ফাতেমা ট্রাস্টের অস্বচ্ছল পরিবারের মাঝে ভ্যান গাড়ি বিতরণ কচুয়ার দুর্গাপুরে ইউপি সদস্যের নির্বাচনী প্রচারনায় হামলা ॥আহত ৪

বাংলাদেশের দেশের সীমানা এখন ৫৬ হাজার বর্গমাইল প্লাস কচুয়া বার্তা ডটকম : ০৭/০৫/২০১৫

  • আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৭ মে, ২০১৫
  • ৭০৫ বার পড়া হয়েছে

simanaনিজস্ব সংবাদদাতা  ॥ ভারতের লোকসভায় স্থল সীমান্ত বিল পাস হওয়ায় বাংলাদেশ পাবে ১৭ হাজার ২৫৮ একর জমি এবং ভারত পাবে ৭ হাজার ১১০ একর জমি। দুই দেশের ছিটমহল বিনিময়ে বাংলাদেশ ১০ হাজার একর জমি পাচ্ছে। ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে জনগণের ভাগ্যান্নয়ণ হয়, মানুষ নিরাপদে থাকে।’ প্রধানমন্ত্রীসহ সিনিয়র নেতারা প্রায়ই এধরনের বক্তব্য দিয়ে থাকেন। ১০ হাজার একর জমি উদ্ধার হওয়ায় এখন আওয়ামী লীগের নেতারা সহজেই বলতে পারেন শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় আসলে দেশের জমিও বাড়ে। ৭৫ পরবর্তী সময়ে দীর্ঘ ২১ বছর পর ৯৬ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের প্রথম সরকারের চেয়ে অনেক বেশি সফলতা নিয়ে আসে ২০০৯ সালের সরকার। আর এরই ধারাবাহিকতায় চার দশকের জমে থাকা সমস্যার সমাধান করে শেখ হাসিনা দেশবাসীকে আরেকবার জানিয়ে দিলেন দেশের উন্নয়ন আওয়ামী লীগের দ্বারাই সম্ভব। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে ভারতের লোকসভায় স্থলসীমান্তচুক্তি পাশ বর্তমান সরকারের বড় কূটনৈতিক সফলতা।
যিনি এই সফলতার প্রকৃত দাবিদার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই সে সম্পর্কে  ৭মে বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, বাংলাদেশ ভারত স্থলসীমান্ত চুক্তি বিল পাস বর্তমান সরকারের বড় কূটনৈতিক সাফল্য। তিনি বলেন, সীমান্ত চুক্তি পাস হওয়ার ফলে ভারতের কাছ থেকে কিছু অতিরিক্ত জমি পাওয়া যাবে।
এরআগে ২০১২ সালের ১৫ মার্চ ইটলস বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের সীমানা চিহ্নিত করে দেয়। এতে বঙ্গোপসাগরে এক লাখ ১১ হাজার ৬৩১ বর্গকিলোমিটারের ওপর বাংলাদেশ অধিকার লাভ করে। আর বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সমুদ্রসীমা নির্ধারিত হওয়ায় বাংলাদেশ পেয়েছে ১৯ হাজার ৪৬৭ বর্গকিলোমিটার। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর সমুদ্র সীমানা ও স্থল সীমানায় বাংলাদেশের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা করে দেশের মানুষকে যেমন করেছে সম্মানিত তেমনি বিশ্ব দরবারে দেশের ভাবমূর্তিকেউ উজ্জল করেছে।
স্থল সীমান্ত চুক্তিটি বাস্তবায়ন হলে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের চার রাজ্য- আসাম, মেঘালয়, ত্রিপুরা ও পশ্চিমবঙ্গের সীমানারেখায় পরিবর্তন আসবে। একই সঙ্গে ছিটমহল সমস্যা, অপদখলীয় ভূমি ও অচিহ্নিত সীমানা সমস্যার স্থায়ী সমাধান হবে।
সীমান্ত বিল বাস্তবায়নের ফলে ভারত বা বাংলাদেশ কোন দেশ বেশি জমি পাবে বা জমি হারাবে এ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে গত বছর সচেতনতা বাড়াতে একটি পুস্তিকা প্রকাশ করে। সেখানে বলা হয়, বাংলাদেশের ভেতর থাকা ভারতের ১১১টি ছিটমহল (১৭ হাজার ১৬০.৬৩ একর) বাংলাদেশকে দেবে ভারত। অন্যদিকে ভারতের মধ্যে থাকা বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহল (সাত হাজার ১১০.০২ একর) বাংলাদেশ দেবে ভারতকে।
ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই পুস্তিকায় বলা হয়েছে, কাগজের হিসেবে ছিটমহল বিনিময়ের ফলে বাংলাদেশের কাছে ভারতের জমি হারানোর মতো বিষয় মনে হলেও বাস্তব প্রেক্ষাপট কিছুটা ভিন্ন। ছিটমহলগুলো অন্য দেশের ভূখ-ের মধ্যে অবস্থিত। বাংলাদেশ বা ভারত কোনো দেশের সঙ্গেই ছিটমহলগুলোর ভৌত যোগাযোগ নেই। বিনিময়ের ফলে ভারতের মধ্যে থাকা ছিটমহলগুলো ভারতের সঙ্গে যুক্ত হবে আর বাংলাদেশের মধ্যে থাকা ছিটমহলগুলো যুক্ত হবে বাংলাদেশের সঙ্গে। বাংলাদেশের প্রাপ্য ছিটমহল বেশি হওয়ায় নতুন মানচিত্রে দেশের আয়তন বাড়বে।
দেখা যাবে, কোথাও ভারতের সীমানারেখা বাংলাদেশের বর্তমান সীমানার ভেতর ঢুকে গেছে। আবার ভারতের সীমানার ভেতরও কোনো কোনো স্থানে বাংলাদেশের সীমানারেখা ঢুকে যাবে। ছিটমহল বিনিময়ের ফলে ভারত যে ১০ হাজার একর জমি বেশি হারাবে, সে জন্য কোনো ক্ষতিপূরণ পাবে না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার