1. ashraful.shanto@gmail.com : Ashraful Talukder : Ashraful Talukder
  2. newstalukder@gmail.com : Alamgir Talukder : Alamgir Talukder
বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০২:৪৭ অপরাহ্ন

কচুয়ার কড়ইয়া ইউনিয়নে চুরি হওয়া গরু উদ্ধার ॥গরুর মালিকের টাকা ফেরত

  • আপডেট : মঙ্গলবার, ১৯ মে, ২০২০
  • ৭৯২ বার পড়া হয়েছে

কচুয়া উপজেলার কড়ইয়া ইউনিয়নের সাদিপুরা চাঁদপুর গ্রামের জাকির হোসেনের চুরি হওয়া গরু উদ্বার হয়েছে। গরু মালিকের দেওয়া ১০ হাজার টাকা ফেরত পেয়েছে। শনিবার চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে পলিটেকনিক ইন্সষ্টিটিউটের সামনের সড়কে মারামারি সংঘঠিত হয়েছে। সকাল সাড়ে দশটার সময় বাসাবাড়িয়া গ্রামের আশেক আলীর ছেলে ইব্রাহীম ও কড়ইয়া গ্রামের দুলাল হোসেনের ছেলে খলিলের সাথে বাক বিতান্ডা থেকে মারামারিতে পরিনত হয়। এক পর্যায়ে খলিল দলবল নিয়ে ইব্রাাহীমকে মারধর করে ওখান থেকে উঠিয়ে কড়ইয়া গাইন বাড়ি এলাকায় আবদ্ধ করে রাখে। সংবাদ পেয়ে কচুয়া থানা পুলিশ আটককৃত ইব্রাহীম ও তার আত্মীয় জুবায়ের এবং শুক্রবার রাতে যার কাছে গরু পাওয়া গিয়েছিল সেই খলিলসহ তিনজনকে থানায় নিয়ে আসে।ওই দিন বিকেলে ৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবদুল্লাহ আল মামুন, ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর আলম মোল্লা ও গরুর মালিক সাদিপুরা চাঁদপুর গ্রামের জাকির হোসেনের স্ত্রী আয়েশা বেগমকে থানায় ডেকে নিয়ে আসা হয়।কচুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ ওয়ালী উল্লাহ পক্ষগন ও আটকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করে মারমারি বিষয় সম্পর্কে অবগত হয়। কচুয়া থানার ওসি ওয়ালী উল্লাহ জনান চুরি হয়ে যাওয়া গরুর মালিক আয়েশা বেগম গরু এবং ১০ হাজার টাকা ফিরে পাওয়ায় অভিযোগ দিতে অপরাগত প্রকাশ করেন। কচুয়া থানা পুলিশ আটককৃতদের আত্মীয়ের নিকট থেকে মুছলেকা নিয়ে তিনজনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।
অপরদিকে ৪ নং ওয়াডের কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর মোল্লা জনান গরুর মালিক তাদের গরু কোথায় ও খুঁজে না পেয়ে জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমাকে অবহিত করলে আমি চারিদেকে গরুর সন্ধানের চেষ্টা চালাই । ওই দিন রাতের বেলা কড়ইয়্া গ্রামের ইউসুফ ও খলিল তাদের কাছে একটি গরুর সন্ধান আছে বলে আমাকে জানান। আমি গরুর মালিকের আত্মীয় কোয়া গ্রামের ফারুককে সংবাদ দিয়ে ইউসুফ ও খলিলের সাথে যোগাযোগ করে গরু নিয়ে যেতে বলি। খলিল ও অপর দুজন গরু নিয়ে রাতের বেলা বিশ্বরোড এলাকায় আসলে খলিলের নিকট থেকে গরু উদ্ধার করে কড়ইয়া গ্রামের হাজী সফিকুল আলম মাষ্টারের ছেলে আবু সাইদ এর জিম্মায় গরু রাখা হয়। পরদিন শনিবার বিকেলে আয়েশা বেগম তার গরু নিয়ে যায়। কাউন্সিলল জাহাঙ্গীর মোল্লা আরো বলেন আমাকে জড়িয়ে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ফেসবুকে যে সব কথা রটিয়ে দেওয়া হয়েছে তা সঠিক নয়। কেউ আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্শ্বনিত হয়ে এমন কাজ করেছে । আমি তাদের এধরনের কর্মকান্ডের নিন্দা জানাই।
24
ছবি : কচুয়ার কড়ইয়া ইউনিয়নের চুরি হওয়া গরু উদ্ধারের একাংশ

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার