Monday , 25 March 2019
সর্বশেষ
You are here: Home / প্রথম পাতা / একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন: ভোটকক্ষে ছবি তোলা যাবে, লাইভ নয় : সিইসি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন: ভোটকক্ষে ছবি তোলা যাবে, লাইভ নয় : সিইসি

ডেস্ক রিপোর্টা : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণের দিন ভোটকক্ষের ভেতরে ছবি তোলা যাবে। কিন্তু সেখান থেকে সরাসরি সম্প্রচার করা যাবে না বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা। ১৫ ডিসেম্বর শনিবার বিকেলে নির্বাচন ভবনের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সিইসি এ কথা বলেন।তিনি বলেন, আচরণবিধি, কেন্দ্র ব্যবস্থাপনা, পর্যবেক্ষক, সাংবাদিকরা কী কার্যক্রম চালাবেন বা সুযোগ-সুবিধা পাবেন তা নিয়ে   বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। আচরণবিধি প্রতিপালন নিয়ে আগামী সপ্তাহ থেকে টেলিভিশনগুলোতে বিজ্ঞাপন প্রচার করা হবে।সিইসি বলেন, পর্যবেক্ষক, সাংবাদিকদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছি-ভোটকক্ষের ভেতরে কোনো লাইভ প্রচার করা যাবে না। কেন্দ্রে সীমিত আকারে সাংবাদিকদের যেতে হবে, যাতে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের অসুবিধা না হয়। বাংলাদেশি পর্যবেক্ষদের জন্য নীতিমালা আছে, বিদেশিদের জন্যও নীতিমালা আছে। সেগুলো মানতে হবে। কেন্দ্রের ভেতরে বেশিক্ষণ থকতে পারবেন না। লাইভ সংবাদ প্রচার করতে পারবেন না। ভোটকক্ষের বাইরে লাইভ করতে পারবেন।তিনি  বলেন, গোপন কক্ষের ফটো তোলা যাবে না। মোবাইল ফোনেও গোপন কক্ষ বাদে ফটো তোলা যাবে। যেখানে ভোট পরিচালনা করা হয়, যেখানে পোলিং, প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং এজেন্ট বসেন, সেখানে লাইভ করা যাবে না। বারান্দায় এসে লাইভ করা যাবে। ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের কাজে যেন ব্যাঘাত না করে, এজন্য এমন সিদ্ধান্ত  নেওয়া হয়েছে ।

সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ভোটকক্ষে গিয়ে যদি ৩০-৪০ জন যান, সাংবাদিকরা একসঙ্গে গেলে তো তারা কাজ করতে পারবেন না। প্রিজাইডিং অফিসার বলবেন, কতজন যেতে পারবেন। প্রিজাইডিং কর্মকর্তার ব্যবস্থাপনার ওপর রেসপেক্ট থাকতে হবে। তাঁর কথা মানতে হবে।নুরুল হুদা আরো বলেন, ভোটকক্ষের ভেতরে মোবাইল ব্যবহার করা যাবে না। তবে মোবাইল ব্যাংকিং ও ইন্টারনেটের গতি কমানোর সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি।আচরণবিধি ভঙ্গের ব্যাপারে সিইসি বলেন, আমরা নির্বাচনী তদন্ত কমিটি গঠন করেছি ১২২টি। তাদের কাছে অভিযোগ করলে ভালো হয়। নির্বাচনের দায়-দায়িত্ব বেশিরভাগ রিটার্নিং কর্মরকর্তার হাতে। এ ছাড়া নির্বাহী ও বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট আছে, তাদের কাছেও অভিযোগ দেওয়া যাবে।সশস্ত্র বাহিনীর ভূমিকা প্রসঙ্গে কেএম নুরু ল হুদা বলেন, সেনাবাহিনী সিআরপিসির ধারা অনুযায়ী পরিস্থিতি বিবেচনায় আটক করতে পারবে। তবে তাদের ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দেওয়া হয়নি। এ সময় নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, রফিকুল ইসলাম, ব্রিগেডিয়ার (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী ও কবিতা খানম এবং ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ উপস্থিত ছিলেন।

1544903100_56-


Warning: count(): Parameter must be an array or an object that implements Countable in /home/kachuaba/public_html/wp-includes/class-wp-comment-query.php on line 399

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top
// Piracy Preventer by @Abu Sufian